SOPIRET BLOG 17/5/23

Sharing Of Lessons Learnt Workshop

 
বিশ্বব্যাংক ও পিকেএসএফ এর আর্থিক ও কারিগরী সহযোগীতায় জাতীয় পর্যায়ের বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা “Society for Project Implementation Research Evaluation & Training” (SOPIRET); Sustainable Enterprise Project (SEP)” এর আওতায় Promotion of Natural Ingredient Made Handicrafts Entrepreneurship in the South-Eastern Region of Bangladesh’-” উপ প্রকল্পটি লক্ষীপুর ও নোয়াখালী জেলায় বাস্তবায়ন করে আসছে।
 
 
 তারই আলোকে অদ্য ২৯/০৯/২০২২ ইং তারিখে রোজ বৃহস্পতিবার লক্ষীপুর সদরের সোপিরেট হল রুমে সকাল ০৯:০০ ঘটিকায়র সময় উপ-প্রকল্পের নারিকেল, সুপারী ও হোগলা পাতা থেকে উৎপাদিত হস্তলশিল্প উৎপাদন খাতের সহিত জড়িত উদ্যোক্তাদের অংশগ্রহনে দিনব্যাপী “Sharing Of Lessons Learnt Workshop” এর আয়োজন করা হয় । প্রকল্প ব্যবস্থাপক জনাব খালেদ মোহাম্মদ সাইফুল্লাহের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের শুরুতে ZOOM Apps এর মাধ্যমে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন সোপিরেট-এর মাননীয় নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক ড. এম. মোসলেহ উদ্দীন। সভাপতিত্ব করেন সংস্থার ডেপুটি কো-অর্ডিনেটর জনাব মোঃ শরীফ হোসেন। আলোচনা পর্বের শুরুতে সকলের সাথে পরিচিতি ও স্বাগত বক্তব্যে সোপিরেট-এর মাননীয় নির্বাহী পরিচালক বলেন-সোপিরেট লক্ষীপুর ও নোয়াখালী জেলার ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের হস্তশিল্প পণ্য উৎপাদন, কারখানার পরিবেশগত উন্নয়ন সহ ব্যবসা পরিচালনার জন্য বিভিন্ন ধরণের দক্ষতা বৃদ্ধিমূলক প্রশিক্ষণ, হস্তশিল্পের ক্লাষ্টারের পরিবেশগত উন্নয়নে বিভিন্ন ধরনের সহযোগীতা প্রদান ও সচেতনতা বৃদ্ধিমূলক কাজ বাস্তবায়ন করে আসছে। তাই এ শিল্পকে টিকিয়ে রাখতে এ শিল্পের সাথে সংশ্লিষ্ট উদ্যোক্তাদের সরকারের পাশাপাশি সোপিরেট সহজ শর্তে আর্থিক ও কারিগরি সহায়তা প্রদান অব্যহত রাখবে। উক্ত ওয়ার্কশপে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন জনাব, হারুন অর রশীদ পাঠান, সহকারী পরিচালক, পরিবেশ অধিদপ্তর, লক্ষীপুর, বিশেষ অতিথি ছিলেন জনাব আব্দুল্লাহিল হাকিম (সুমন), স্যানিটারী ইন্সপেক্টর, লক্ষীপুর পৌরসভা, লক্ষীপুর ।প্রধান অতিথি বলেন হস্তশিল্পে যে সকল ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা আছে তারা যদি সেবা নিতে চায় নিয়মানুযায়ী সেবা প্রদান করবেন বলে আশ্বস্ত করেন এবংএ রকম সভা অয়োজনের মধ্য দিয়ে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের কার্যক্রম অবগত হওয়া, পরিবেশ সম্পর্কে সচেতনা বৃদ্ধি, কারখানার কর্মপরিবেশ উন্নয়নের উপর আলোকপাত করেন।


 
 
অংশগ্রহনকারীদের সক্রিয় অংশগ্রহণের মাধ্যমে ওয়ার্কশপটি আরও প্রাণবন্ত হয়ে ওঠে এবং তাদের সুচিন্তিত মতামত ব্যক্ত করেন। উদ্যোক্তাদের সক্ষমতার বৃদ্ধির উদ্যোগ গ্রহণ করার জন্য এ ধরনের ওয়ার্কশপ আয়োজনের ভূয়শী প্রশংসা করেন। টেকসই উন্নয়নের জন্য হস্তশিল্পের প্রসারে বৈচিত্র্যময় পণ্য তৈরীতে পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তি ব্যবহার ও ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের আর্থিক সহায়তা প্রদানের পাশাপাশি পরিবেশকে ঠিক রেখে কার্যক্রম পরিচালনার ওপর গুরত্বারোপ করে উপস্থিত সকলের সাথে উন্মুক্ত আলোচনার মাধ্যমে আগামী দিনগুলোতে আরও কর্মশালার আয়োজনের সহযোগিতা কামনা করে ওয়ার্কশপ সমাপ্ত ঘোষণা করা হয়।